অনলাইনে কেনাকাটা করার টিপস!

বর্তমানে চলছে ডিজিটাল বিপ্লবের যুগ! সারা বিশ্বে ই-কর্মাসের প্রসারের যে হাওয়া, সেটা অন্যান্য দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেও বইছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৭-৮ বছরে বাংলাদেশে প্রচুর ই-কমার্স কোম্পানি গড়ে ওঠেছে। কিন্তু সমস্যা হলো ইদানীং- ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জের মতো ধান্ধাবাজ কোম্পানিগুলোর কারণে, বাংলাদেশের ই-কমার্স সেক্টর ডুবতে বসেছে। ভোক্তারা কারা অথেন্টিক – জেনুইন কোম্পানি, আর কারা বাটপার কোম্পানি তা নিয়ে কনফিউজড! এ কারণে অনেকেই এখন অনলাইনে কেনাকাটা করা-ই বন্ধ করে দিয়েছেন। তবে, এটা কোনো সলিউশন না, অনেকটা মাথা ব্যথার প্রতিকার হিসেবে মাথা কেটে ফেলার মতো ব্যাপার। তাই, আজকের পোস্টে আমরা আপনাদেরকে, অনলাইনে কেনাকাটা করার কিছু টিপস শেয়ার করব; যেগুলো ফলো করলে আপনাদের ধান্ধাবাজ কোম্পানির হাতে পড়ে টাকা খোয়াতে হবে না! চলুন জেনে নেওয়া যাক- অনলাইনে কেনাকাটা করার টিপস গুলো কী কী?

আরও পড়ুন: উদ্ভট উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ | আবুল হাসনাত বাঁধন

অনলাইনে কেনাকাটা করার টিপস

আমি গত ৩-৪ বছরে অনলাইনে প্রচুর কেনাকাটা করেছি! কারণ আমরা কনজুমাররা আগ্রহ না দেখালে দেশের ই-কমার্স সেক্টর আগাবে না!

অফিশিয়াল সাইট থেকে কিনেছি দারাজ, সাজগোজ আর স্টাইলিন থেকে! বাকি সব ফেসবুক শপ থেকে! এখন পর্যন্ত কোনো প্রোডাক্টে ঠকিনি, কোনো প্রোডাক্ট নষ্টও হয়নি; বাজে প্রোডাক্টও পায়নি!

তবে কুরিয়ার নিয়ে এখনো বেশ ঝামেলা আছে দেশে! বেশিভাগ প্রোডাক্ট নষ্ট করে কুরিয়ার কোম্পানিগুলাই! কুরিয়ার বিবেচনা করলে সাজগোজ বেস্ট + প্রফেশনাল!

আরও পড়ুন: বেস্ট প্রাইসে ডোমেইন কিনবেন কীভাবে?

১৩ তারিখ দারাজে একটা মাউস অর্ডার করেছিলাম, কোনো কারণে সোর্সিং ডিলে রিজন দেখিয়ে আমার অর্ডারটা ক্যান্সেল হয়ে গেছিল অটো! ৪ দিনের মাথায় বিকাশে ফুল রিফান্ড করে দিয়েছে! আজকে সেম জিনিস আবার অর্ডার করলাম! এই ৪ দিনে দারাজের সাথে কথাও বলিলি, হেল্প সেন্টারে চ্যাটও করিনি! কারণ ওদের রিফান্ড পলিসিতে ৫ দিন লেখা ছিল; তাই দেখছিলাম ৫ দিনে কী করে! [এর মধ্যে বিকাশে ১০% করে ক্যাশব্যাক অফার দিয়েছে, ফলে আমার মাউসের প্রাইস ২০% কমে গেছে!]

তো, বসে বসে ভাবছি এই অর্ডারটা আমি ইভ্যালিতে করলে সেই টাকার আশা ছেড়েই দিতে হত! আমার নাতিপুতি টাকাটা রিফান্ড পেত কিনা তা নিয়েও প্রচুর সন্দেহ আছে! আসলে বাটপারদের চেয়ে আমরা কনজুমারদের দোষ বেশি! লোভনীয় অফার দেখে- বিজনেস মডেল না বুঝেই ফাল মারি! এই জন্য ধরাও খায়! আমার পরিচিত অনেকে, ইভ্যালিতে লাখ লাখ টাকা ইনভেস্ট করে রেখেছে! ইভ্যালি তল্পিতল্পা গুঁটিয়ে ভাগলে, প্রচুর মানুষ সেই লেভেলের ধরা খাবে!

আরও পড়ুন: সেরা ৫টি ফ্রি সিএমএস প্ল্যাটফর্ম!

এই বাটপারের যুগে, ডিজিটাল মন্দার যুগে, ই-কমার্স সেক্টরে দারাজ, আজকের ডিল, চালডালসহ অনেক কোম্পানি দাঁত কামড়ায় দাঁড়িয়ে আছে! অন্যদিকে ছোটো-ছোটো ফেসবুক শপগুলোও ফাইট দিয়ে যাচ্ছে!

আপনারা সবাই তাই অনলাইনে কেনাকাটা করুন, বেশি বেশি করুন! তবে লোভনীয় অফার দেখে ফাল মেরে নয়! অথেন্টিক মার্কেটপ্লেস কিংবা শপ থেকে কিনুন। রিভিউ দেখে কিনুন! বুঝেশুনে কাজ করলে কখনো ঠকবেন না!

টিপসগুলো একসাথে জেনে নিন

  • নামকরা কোম্পানি, যেমন- দারাজ, আজকের ডিল, চালডাল ইত্যাদি থেকে কিনুন।
  • কেনার আগে সাইটের রিভিউ দেখুন, দারাজে হলে শপগুলোর রিভিউ দেখুন; ফেসবুক শপ হলে পেজের রিভিউ দেখুন।
  • প্রোডাক্ট কেনার আগে, প্রোডাক্টের ইউজার রিভিউ দেখুন।
  • কেনার আগে তাদের পেমেন্ট মেথড অথেন্টিক কিনা চেক করুন।
  • ক্যাশ অন ডেলিভারি সিস্টেম থাকলে এই পদ্ধতিতেই প্রোডাক্ট কিনুন।
  • ভৌতিক, লোভনীয়, এবনর্মাল অফার দেখলে সেদিকে হাত বাড়াবেন না।
  • ভালো কোম্পানিতে ছোটোখাটো ক্যাশব্যাক অফার থাকে, ওগুলো নিতে সমস্যা নেই।
  • একসাথে বিশাল অ্যামাউন্টের অর্ডার করবেন না।

আরও পড়ুন: সেরা ৬টি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস!

*****

আশা করি, এখন থেকে অনলাইনে কেনাকাটা করার এই টিপস গুলো ফলো করলে আপনারা আর ঠকবেন না! দেশের ই-কর্মাস সেক্টরও এগিয়ে যেতে পারবে! তো, আজকের পোস্ট এই পর্যন্ত। আপনাদের কোনোকিছু জানার থাকলে কমেন্ট করতে পারেন!

আরও পড়ুন: প্যাসিভ ইনকাম জেনেরেট করতে কেন নিউজ পোর্টাল চালু করা উচিত?

One thought on “অনলাইনে কেনাকাটা করার টিপস!”
  1. এই বাটপারের যুগে, ডিজিটাল মন্দার যুগে, ই-কমার্স সেক্টরে দারাজ, আজকের ডিল, চালডালসহ অনেক কোম্পানি দাঁত কামড়ায় দাঁড়িয়ে আছে! অন্যদিকে ছোটো-ছোটো ফেসবুক শপগুলোও ফাইট দিয়ে যাচ্ছে!

মন্তব্য করুন:

%d bloggers like this: